আরেকটি দিনলিপি

০।
অনেকদিন কিছুই লেখা হয় না। ব্লগের প্রথম পাতার পরিসংখ্যান জানাচ্ছে প্রায় এক মাস। কেন লেখা হচ্ছে না এই প্রশ্নের উত্তর খুজতে গিয়ে দেখি উত্তর খোজা অবান্তর। তার থেকে বরং একটা কিছু হাবিজাবি লিখে ফেলাই উত্তম।

০১।
দেখতে দেখতে বিশ্বকাপ শেষ হয়ে এল। তবে এইবার বিশ্বকাপ টা বেশ জমজামাট হয়েছে আমার মতে। যদিও আমার ফেভারিট ব্রাজিল বাদ পরে গেছে আগেই কিন্তু তাতেও উপভোগ করতে সমস্যা হয় নি। কারণ ছোট ছোট দল গুলো দারুণ চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দিয়েছে। বিশেষ করে উরুগুয়ে আর ফোরলানের কথা না বললেই না। বিশ্বকাপ শুরুর আগে যদি কেউ বলত যে উরুগুয়ে সেমিতে যাবে সম্ভবত উরুগুয়েনরাও তেমন একটা বিশ্বাস করত না কিন্তু দলটা আসলেই সবাই কে চমকৃ্ত করেছে। ফোরলান কে ভরকেন্দ্রে রেখে দারুণ খেলেছে দলটা। বিশেষ করে কোয়ার্টার ফাইনালে সুয়ারেজের সেই হ্যান্ডবল আর তারপর তার উল্লাসিত লাফ মনে থাকবে অনেক কাল। জার্মান দলটাকেও এইবার বেশ ভাল লাগল। নতুন একদল প্লেয়ার আর দারুণ গতিময় ফুটবল সত্যিই চমতকার। তবে আজকে ফাইনালে কে যে জিতবে? আমার ফেভারিট স্পেন। দেখা যাক আর কয়েক ঘন্টার মধ্যেই কি উত্তর আসে এই প্রেডিকশনের।

০২।
মাঝে মাঝে কিছু খবর দেখলে মনটা ভাল হয়ে যায়। এরকম একটা খবর গতকালের প্রথম আলোর ছুটির দিনের প্রচ্ছদ প্রতিবেদন টা। পিটার কস্টার্স নামে এক হল্যান্ড দেশীয় কে নিয়ে। মুক্তিযুদ্ধের সময় বিদেশে বাংলাদেশের প্রতি প্রচারণা, পরবর্তীতে জাসদের সাথে তার যোগাযোগ, ফ্ল্যাপ আন্দলোনে তার ভূমিকা আর নানা কথা। এত কিছুর পর শুধু একটা কথাই বলা যায়, স্যালুট পিটার কস্টার্স।

০৩।
পরীক্ষা চলছে। এক পেপার হয়ে গেল। তেমন একটা সুবিধে করতে পারি নি। সামনে আছে আর গোটা পাঁচেক, দেখা যাক কি হয়।

০৪।
মাঝখানে কয়েকদিন পত্রিকার কয়েকটা খবর দেখে শিউরে উঠা ছাড়া উপায় ছিল না। এসব কি হচ্ছে?? মায়ের পরকীয়ার বলি হচ্ছে শিশু, বাবা হত্যা করছে জমজ সন্তানদের। পত্রিকার পাতায় আর আর অনেক সমজাতীয় খবর, কিন্তু কেন? থার্ড ইয়ারে থাকতে একটা কোর্স পড়তে হত সামাজিক পরিবর্তন নামে। সেইখানেই স্যার একবার বলেছিল, আমাদের সমাজ পরিবর্তন হচ্ছে। পরিবর্তন হচ্ছে পুরাতন মূল্যবোধের কিন্তু এই পরিবর্তন এখনো সুস্থির হয়ে উঠতে পারে নি। পুরাতন সামাজিক রীতিনীতি থেকে বেরিয়ে নতুন রীতিনীতির প্রতি আমাদের যাত্রায় আমরা আছি মাঝপথে এবং সামাজিক বিজ্ঞান বলে যাত্রাকালীন এই মাঝপথটাই ভয়ংকর। কারণ এই সময় সমাজ অস্থিতিশীল হয়ে উঠে। তবে আমাদের উন্নয়ন বিষয়ক ভাবনা গুলো দেখলে একটা জিনিস চোখে পরে। আমরা যদিও বৈষয়িক উন্নয়নের দিকে আমদের জাতীয় গতিধারা চালিত করছি কিন্তু সেখানে এই উন্নয়ন ধারার সাথে আমাদের সমাজের সঠিক সংযোগ ঘটানোর বিষয়ে চিন্তাভাবনার পরিধির গভীরতার অভাব আছে।

০০।
দেখা যাক আবার ব্লগীং এ নিয়মিত হওয়া যায় কিনা 🙂

Advertisements

4 thoughts on “আরেকটি দিনলিপি

  1. ০২ এবং ০৪
    মিডিয়া কি ভাবে খবর ছাপাবে বা পরিবেশন করে তা ব্যবসা নির্ভর । খারাপ ভাল ঘটনা ফ্যাক্ট অফ লাইফ। অপ্রাসঙ্গিক মন্তব্য বটে। ওয়ার্ডপ্রেসে লিখে দেখলাম। আমার ব্লগে মন্তব্য বা গালি দিন। শোধবোধ।

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s